মেনু নির্বাচন করুন

সাহেবরামপুর পাবলিক লাইব্রেরী

ঐতিহ্য মন্ডিত সাহেবরামপুর ইউনিয়ন অঞ্চল বহুকৃতিতে গৌরবান্বিত ও কৃতি সন্তানদের বাসভূমি এর প্রতিষ্ঠাতর কালসহ বিবরণ।

দীর্ঘকাল ব্যাপী গ্রাম বাংলার জনবহুল নিভৃত অঞ্চল সাহেবরামপুর একটি ঐতিহ্যবাহী অঞ্চল। বহু কৃতি সন্তানের জন্ম এই এলাকায়। ব্রিটিশ আমলে মাদারীপুরের কৃতি সন্তান ফরিদপুর জেলা বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যঅন মরহুম আলীমদ্দিন খান সাহেবের নেত্রত্বে ও অনুকুল্যে অত্র জনবহুল অঞ্চলে জনগণের নূন্যতম স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে নির্মিত হয় সাহেবরামপুর দাতব্য চিকিৎসালয় এবং সাহেবরামপুর পঞ্চম জর্জ মেমোরিয়াল/পাবলিক লাইব্রেরী। সেই অন্ধকারযুগে এই গ্রান্থাগার নির্মানে নেতৃত্ব দান করেন প্রতিষ্ঠাতা যশস্বী শিক্ষক কয়ারিয়া নিবাসী মরহুম আব্দুল হামিদ মাস্টার । অতপর আলীমদ্দিন খান সাহেবের নেতৃত্বে নিখিল ভঙ্গের তৎকালীন মুখ্য মন্ত্রী শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক এই নিভৃত পল্লীতে পদার্পন করেন। তাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়। তিনি দাতব্য চিকিৎসালয় ও পঞ্চম জর্জ মেমেরিয়াল লাইব্রেরী দ্বার উদঘাটন করেন ১৯৪০ সালের ১২ই জানুয়ারী । তিনি গ্রান্থাগারের জন্য বেশকিছু আসবাব পত্র ও অন্যান্য দ্রব্য সামগ্রী প্রদান করেন। যা আজও অম্লান আছে। উল্লেখ্য ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর সার্বভৌম স্বাধীণ  বাংলাদেশের আবির্ভাবের পর এক পর্যায়ে পঞ্চম জর্জ মেমোরিয়াল লাইব্রেরী নাম পরিবর্তন করে সাহেবরামপুর পাবলিক লাইব্রেরী রুপে নামকরণ করা হয়। বর্তমানে এর সভাপতির দায়িত্বে আছেন সুযোগ্য নিপুণ কর্মী স্বনামখ্যাত শিশিষ্ট্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সাহেবরামপুর ঐতিহ্যবাহী মাদারীপুর জেলা ও ফরিদপুর বিভাগীয় অঞ্চলের শিক্ষক সমিতির সভাপতি হাকিমুন নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবক প্রধান শিক্ষক, জনাব আলহাজ্জ্ব মো: আওলাদ হোসেন। প্রায় ২৫০০ শত পুস্তক ও ১ কোটি টাকার সম্পদ সৃষ্টি হয়েছে।নতুন পুরাতন মিলিয়ে গ্রান্থাগারের প্রায় ১৫ শতক জমি আছে। কালকিনি উপজেলার পূর্বাঞ্চলের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য নির্মিত একমাত্র উচ্চ শিক্ষার দ্বার সাহেবরাপুর কবি নজরুল ইসলাম ডিগ্রী কলেজ। মরহুম আব্দুল আজিজ সরদারের একক ডোনেশনে ৯ বিঘা জমিতে নির্মিত কলেজটির প্রতিষ্ঠাতা বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ সুপন্ডিত ও লেখক অধ্যক্ষ প্রফেসর মো: আসাদুজ্জামান স্থানীয় বহু শিক্ষানুরাগীদের নিয়ে পল্লীর নিভৃত অঞ্চলে সাহেবরামপুর কবি নজরুল ইসলাম ডিগ্রী কলেজ উন্মোচন করেন। ১৯৪৬ সালে মরহুম নাসির উদ্দিন সাহেবের ডোনেশন ও প্রতিষ্ঠাতা মরহুম ডা: রশিদ আহম্মদের প্রচেষ্টায় নির্মিত হয় সাহেবরামপুর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়। উল্লেখ্য উপজেলা উপ-কন্ঠে মেয়েদের শিক্ষা সম্প্রসারণের জন্য বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ছিল না। তখন ১৯৬৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় নারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সাহেবরামপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাতা মরহুম মৌলভী হাবিবুর রহমান ও প্রধান পৃষ্ঠপোষক ছিলেন অধ্যক্ষ প্রফেসর মো: আসাদুজ্জামান একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং অত্র পূর্বাঞ্চলের এক জন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হয়ে মুক্তিযুদ্ধ কমান্ডারদের পরিচালনায় পরিচালক ছিলেন। উক্ত বালিকা উ্চ্চ বিদ্যালয়ে আজীবন প্রধান শিক্ষক ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বর্তমান কালকিনি উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহসভাপতি জনাব আলহাজ্ব মো: আওলাদ হোসেন।

অত্র ইউনিয়নে ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানগুলোর সংক্ষিপ্ত বিবরণ এবং শেরে বাংলা একে ফজলুল হক সাহেবের স্মৃতি বিজড়িত ঐতিহ্যবাহী সাহেবরামপুর পাবলিক লাইব্রেরী।

কিভাবে যাওয়া যায়:

কালকিনি স্টান হতে ইজিবাইক, মটর সাইকেল, মাহিন্দ, অটভ্যান ইত্যাদি যোগে যাওয়া যায়।


Share with :

Facebook Twitter